উদযাপিত হলো বিশ্ব নাট্যদিবস-২০১৮

0
304

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

২৭ মার্চ ছিল বিশ্ব নাট্যদিবস। আনন্দ শোভাযাত্রা, স্মারক সম্মাননা, স্মারক বক্তৃতা আর প্রীতি সম্মিলনীর মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করলেন বাংলাদেশের নাট্যকর্মীরা। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশান, ইন্টারন্যাশনাল থিয়েটার ইনস্টিটিউট (আইটিআই) বাংলাদেশ কেন্দ্র; এবং বাংলাদেশ পথনাটক পরিষদের যৌথ আয়োজনে দিবসটি উদযাপিত হয়।

সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এই আয়োজনে বিশ্ব নাট্যদিবস বক্তৃতা প্রদান করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। তিনি বলেন, ‘নাটক একটি শ্বাসের নাম। নাটকের চরিত্রকে বিশ্বাস করতে না পারলে পরিপূর্ণভাবে নাটক উপস্থাপিত হয় না। নাটকের ঘটে যাওয়া ঘটনা নিজের মনে ও শরীরে এমনভাবে বিশ্বাস করতে হবে যেন, এটাই আমার জীবন। যেখানে প্রবেশ করার পর আমি কোনো আপস করব না। সে সঙ্গে অভিনেতাকে শুধু অভিনয় জানলেই হবে না; সমাজ ও রাজনীতি সচেতনও হতে হবে।’

এতে পৃথিবীর পাঁচজন বিশিষ্ট নাট্যব্যক্তিত্বের বাণী পাঠ করা হয়। বাণীদাতারা হলেন ভারতের রামগোপাল বাজাজ, লেবাননের মায়া জ্বিব, যুক্তরাজ্যের সাইমন ম্যাকবার্নি, মেক্সিকোর সাবিনা বারমান ও আইভরি কোস্টের উইয়ার উইয়ার লিকিং। এরপর জাতীয় বাণী পাঠ করেন নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার। অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের নাট্যজন শ্যামল ভট্টাচার্যকে এ বছরের বিশ্ব নাট্যদিবস সম্মাননা প্রদান করা হয়।

আলোচনা পর্ব শেষে ছিল সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। এতে অংশ নেন বিভিন্ন নাট্যদলের সদস্যরা। সবশেষে চিত্রশালা প্লাজার চারু প্রাঙ্গণে ছিল প্রীতি সম্মিলনী।

এর আগে বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে বের করা হয় এক আনন্দ শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন ইন্টারন্যাশনাল থিয়েটার ইনস্টিটিউট (আইটিআই) সাম্মানিক সভাপতি রামেন্দু মজুমদার, শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, নাট্যজন আতাউর রহমান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশানের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ঝুনা চৌধুরী ও নাদের চৌধুরী, সেক্রেটারি জেনারেল আকতারুজ্জামান, নাট্য নির্দেশক রোকেয়া রফিক বেবী প্রমুখ। বিভিন্ন নাটকের পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন বহন করেন দেশের প্রায় সব নাট্যদলের কর্মীরা। শহীদ মিনার থেকে বের হয়ে টিএসসি, দোয়েল চত্বর, শিশু একাডেমি, হাইকোর্ট মোড়, জাতীয় প্রেস ক্লাব হয়ে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয় এই শোভাযাত্রা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here