খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্বাচন করতে দেওয়া হবে নাঃ ফখরুল

0
346

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে জাতীয় সংসদ নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না। শনিবার বিকেলে বরিশাল নগরীর বান্ধ রোড সংলগ্ন কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে বিএনপির বরিশাল বিভাগীয় সমাবেশে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এসব কথা বলেন।

চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারামুক্তি আন্দোলন জোরদার ও নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

বিভাগীয় সমাবেশের জন্য গত ১৪ মার্চ বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কাছে আবেদন করলেও তাদের কাছ থেকে অনুমতি মেলে গত শুক্রবার রাত ১০টায়। ফলে এ সমাবেশ নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিল।

তবে ১৬ ঘণ্টা আগে অনুমতি পাওয়ার পর দ্রুত সময়ের মধ্যে কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে মঞ্চ তৈরিসহ সমাবেশের প্রস্ততি নেয় বিএনপি। বরিশাল বিভাগের ছয় জেলা থেকে কয়েক হাজার নেতাকর্মী সমাবেশে অংশ নেয়।

কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও বরিশাল মহানগর সভাপতি মজিবর রহমান সরোয়ারের সভাতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান, মির্জা আব্বাস, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ প্রায় এক ডজন নেতা।

মির্জা ফখরুল তার বক্তব্যে বলেন, ‘স্যাঁতসেঁতে কক্ষে রাখায় বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার সুচিকিৎসা হচ্ছে না। তিনি ব্যক্তিগত চিকিৎসকের সেবা চাইলেও সরকার তাকে সে সুযোগ দিচ্ছে না। শনিবার তাকে পিজি হাসপাতালে এনে যে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে তাতে বেগম খালেদা জিয়াকে যথাযথ চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে দেশের জনগণ মনে করে না।’

তিনি বলেন, সরকার দাবি করছে দেশ নাকি উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে উন্নীত হয়েছে। এতে সাধারণ জনগণের জীবন-মানের কোনো উন্নয়ন হয়নি। অর্থনৈতিক উন্নতি হয়েছে দেশের আওয়ামী লীগ নেতাদের।

তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা শান্ত ও সুশৃঙ্খল থাকুন। নেত্রীর নির্দেশ পেলেই দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও জুলুমবাজ সরকার উৎখাতে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।

স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশারফ হোসেন বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে নিয়ম রক্ষার নির্বাচন বলে শেখ হাসিনা দেশের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, সরকারের আচরণ দেখে মনে হচ্ছে আমরা এদেশে রোহিঙ্গা নাগরিক।

মঈন খান বলেন, ‘বিএনপি ভদ্রলোকের দল। এ জন্য নিয়মতান্ত্রিকভাবেই বেগম জিয়ার মুক্তি ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আন্দোলন করছে।’

আমীর খসরু মাহমুদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার দেশের বিচার বিভাগ, বাকস্বাধীনতাসহ সবকিছুই তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে।’

সভাপতির বক্তৃতায় মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, ‘বিএনপির জনসভা হলেই জনতার ঢল নামে। এতে সরকার ভীত হয়ে পড়েছে।’

সমাবেশে আরও বক্তৃতা করেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, বেগম সেলিমা রহমান, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, বরকত উল্লাহ বুলু, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস আক্তার জাহান শিরিন, কেন্দ্রীয় নেতা এবিএম মোশারফ হোসেন, মাহবুবুল হক নান্নু, মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, নাজিম উদ্দিন আলম, বরিশাল দক্ষিণ জেলা সভাপতি এবায়দুল হক চাঁন, উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান, মহানগরের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদার, ভোলা জেলা সভাপতি গোলাম নবী আলমগীর প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here