জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস পৃথকভাবে উৎযাপন

0
346

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

আজ ৩ এপ্রিল জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস। ‘ঐতিহ্যের ভিত্তি ধরি, দেশের ছবি রক্ষা করি’ স্লোগানকে সামনে রেখে উদযাপিত হচ্ছে যাচ্ছে জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস ২০১৮। দেশীয় চলচ্চিত্রের বিকাশ ও উন্নয়নে ২০১২ সাল থেকে ৩ এপ্রিল জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস হিসেবে উদযাপিত হয়ে আসছে।

চলচ্চিত্র পরিবার এবার আলাদা করে জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস উদযাপন করল।এফডিসি আয়োজিত অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু প্রধান অতিথি হওয়ায় সেই অনুষ্ঠানকে বয়কট করেছে চলচ্চিত্র পরিবার। যদিও গত ছয় বছর দিবসটি এফডিসি ও চলচ্চিত্রের সংগঠনগুলো একসঙ্গেই পালন করেছে।

তথ্যমন্ত্রী দিবসটি উদ্বোধন করে চলে যাওয়ার পর এফডিসিতেই বেলা ১১টায় আলাদা করে দিবসটি উদযাপন শুরু করে চলচ্চিত্র পরিবার। ফিতা কেটে দিনটির উদ্বোধন করেন বর্ষীয়ান অভিনেতা ও উদযাপন কমিটির সভাপতি সৈয়দ হাসান ইমাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্র পরিবারের আহ্বায়ক নায়ক ফারুক, ইলিয়াস কাঞ্চন, পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার, ছটকু আহমেদ, শাহীন সুমন, সিডাব সভাপতি এসআই ফারুক, নায়িকা সুচন্দা, পপি, জেসমিন প্রমুখ।

সৈয়দ হাসান ইমাম বলেন, ‘আজকের দিনটি হতো না, যদি বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হতো, তিনি যেমন আমাদের জন্য এই দেশটি দিয়ে গেছেন, তেমনি আমাদের বিনোদনের জন্য প্রতিষ্ঠা করেছেন বাংলাদেশের চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা আমাদের দিয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস। কিন্তু আমরা শুধু জাতীয় হয়ে থাকতে চাই না। আমরা আন্তর্জাতিক হতে চাই। সে জন্য আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন।’

চলচ্চিত্রের উন্নয়নের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ কর্তৃপক্ষ ব্যবহার করতে না পারার সমালোচনাও করেন হাসান ইমাম। তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের উন্নয়নের জন্য টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন, কিন্তু বিশাল অঙ্কের টাকা ব্যবহার করতে না পেরে বিএফডিসির কর্মকর্তারা ফেরত পাঠিয়েছেন। অথচ আমরা টাকার অভাবে দিন দিন পিছিয়ে যাচ্ছি। এখনো বিভিন্ন প্রজেক্টে টাকা দিচ্ছেন। কিন্তু আমরা জানি না, সেগুলো সঠিকভাবে ব্যবহার হচ্ছে কি না। এখন আমাদের দেশের চলচ্চিত্রের জন্য প্রয়োজন প্রজেক্টর মেশিন ও কেন্দ্রীয় সার্ভার। আধুনিক যন্ত্রপাতি। প্রধানমন্ত্রী আপনার দৃষ্টি আমাদের দিকে আছে বলেই আপনি আমাদের চলচ্চিত্রের জন্য টাকা দিচ্ছেন, কিন্তু শুধু টাকা দিলেই হবে না, সেগুলো কীভাবে ব্যবহার হচ্ছে বা সঠিকভাবে ব্যবহার হচ্ছে কি না, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।’

এ সময় নায়ক ফারুক বলেন, ‘আমাদের চলচ্চিত্রের অবস্থা কখনই খারাপ ছিল না, কিছু চক্র আমাদের চলচ্চিত্রকে ধ্বংস করার জন্য কাজ করছে, তারা আমাদের দেশের চলচ্চিত্রকে দাবিয়ে রেখে ভিনদেশের চলচ্চিত্রকে জায়গা করে দিতে চাইছে। আমরা তা হতে দেবো না। আজ চলচ্চিত্র দিবসে এটা আমাদের অঙ্গীকার। আন্দোলন করে হলেও আমরা আমাদের দাবি আদায় করে চলচ্চিত্রের পথ সুগম করব।’

পরে স্থিরচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়। দুপুর ১২টার দিকে শুরু হয় বর্ণাঢ্য র‍্যালি। ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে তাঁরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দেন। বিকেলে চলচ্চিত্র পরিবারের আয়োজনে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here