প্রশ্ন পত্র ফাঁস ছাড়াই প্রথম দিন

0
395

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

প্রশ্নপত্র ফাঁসের শঙ্কা ছিল সারাদেশে, দেশের দু-একটি স্থানে চেষ্টাও হয়েছিল। তবে সব অপচেষ্টা রুখে দিয়ে শেষ পর্যন্ত সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবেই অনুষ্ঠিত হয়েছে এইচএসসি ও সমমানের প্রথম দিনের পরীক্ষা। কোথাও প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়নি। স্বভাবতই এতে খুবই খুশি পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, ‘মানুষের পক্ষে যা যা করা সম্ভব, সবই করেছি।’

এ বছর সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ কাজে লেগেছে। পরীক্ষার শেষ দিন পর্যন্ত এ  ধারা ধরে রাখা গেলে আগামীতে সব পরীক্ষাতেই প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধ হয়ে যাবে,এমনটাই মনে করছেন কলেজের অধ্যক্ষরা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় মনে করে, চার সেট প্রশ্ন ছাপানো আর বিলম্বে সেট নির্ধারণের লটারি করার কারণেই এবার সফল হতে পারেনি প্রশ্ন ফাঁসকারীরা। এ কৌশল দারুণ কাজে দিয়েছে।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টা অথবা ফাঁসের গুজব ছড়িয়ে অর্থ আদায়ের চেষ্টার অভিযোগে গতকাল সারাদেশে সাতজনকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। প্রশ্ন ফাঁস রোধে বিশেষভাবে তৎপর রয়েছে র‌্যাব। এ জন্য তারা ছদ্মবেশও ধারণ করেছে।

এইচএসসিতে গতকাল সোমবার ছিল বাংলা প্রথম পত্র বিষয়ের পরীক্ষা। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে দুপুর ১টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা চলে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অথবা অন্য কোনো মাধ্যমেও প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার কোনো খবর, এমনকি অভিযোগও পাওয়া যায়নি বলে সমকালকে জানিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার বলেন, ‘আমরা প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো অভিযোগ পাইনি।’

এবার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরুর কয়েক দিন আগে থেকেই পুলিশের সাইবার টহল অব্যাহত ছিল। ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইমোসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কড়া নজর রাখা হয়। তবে অন্যান্য পরীক্ষার মতো এবারও একটি অসাধু চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভুয়া প্রশ্ন ছড়িয়ে টাকার বিনিময়ে বাংলা প্রথম পত্রের প্রশ্ন দেওয়ার বিজ্ঞাপন দিয়েছিল। ১০০ ভাগ গ্যারান্টিও দেওয়া হয়েছিল। এ ক্ষেত্রে প্রশ্নপত্র লেনদেনে ফেসবুক ও হোয়াটস অ্যাপে খোলা হয়েছিল ক্লোজ চ্যাট গ্রুপ। তবে সেখানে পাওয়া প্রশ্নের সঙ্গে গতকাল অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নের কোনো মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here