বগুড়ায় প্রেমিককে বেঁধে রেখে প্রেমিকাকে গণধর্ষণ, আটক ২

0
313

বগুড়া প্রতিনিধিঃ

প্রেমিককে বেঁধে রেখে এক কিশোরী প্রেমিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে বগুড়ার শেরপুরে । এ ঘটনায় দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার বিকেলে শেরপুর ও ধুনট থানার পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে নিজ নিজ বাড়ি থেকে তাদের আটক করে।

আটকৃতরা হলেন জেলার ধুনট উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের চর খাদুলী গ্রামের মাসুদ রানার ছেলে মো. সোহাগ (২০) ও একই এলাকার ভাদাইলহাটা গ্রামের স্কুল শিক্ষক শাজাহান আলীর ছেলে মো. স্বপন শেখ (২১)।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শেরপুর থানার  ওসি (তদন্ত) বুলবুল ইসলাম জানান, ধুনট উপজেলার প্রতাপ খাদুলী গ্রামের এইচএসসি পরীক্ষার্থী এক কিশোরীর সঙ্গে মোবাইলফোনের মাধ্যমে রংপুর জেলা সদরের খটখটিয়া গ্রামের শামীম আহমদের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এরই সূত্রধরে গেল ২৬মার্চ উভয়ই শেরপুর শহরে আসেন। সেখান থেকে উপজেলার সীমাবাড়ী ইউনিয়নের নাকুয়া গ্রামে বেড়াতে যায়। পরে  নাকুয়া দাখিল মাদ্রাসার একটি কক্ষে বসে কথা বলছিল তারা।

তিনি জানান, এসময় নাকুয়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আকুল মিয়া এবং পুলিশের অভিযানে আটক হওয়া স্বপন ও সোহাগ নামে তিন যুবক সেখানে যান। সেখানে  প্রেমিকযুগলকে আটকে রেখে তাদের কাছে বিশ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে তারা। কিন্তু তারা টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে অভিযুক্তরা তাদের মারধর করেন। এক পর্যায়ে প্রেমিক শামীমকে বেঁধে রেখে ওই তিন যুবক মেয়েটিকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

ওসি জানান, ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্তদের নানা হুমকি-ধামকির কারণ্ আইনের আশ্রয় না নিয়ে ঢাকায় চলে যায় ভুক্তভোগী প্রেমিকযুগল। কিন্তু সোমবার থেকে শুরু হওয়া এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে রোববার বাড়িতে এসে পরিবারের কাছে ঘটনাটি জানায় মেয়েটি। পরে সোমবার  দুপুরে মেয়েটির বাবা বাদি হয়ে ওই তিন যুবককে অভিযুক্ত করে শেরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এরপর অভিযুক্তদের ধরতে পুলিশি অভিযান শুরু করা হয়।

বুলবুল ইসলাম বলেন, অভিযানে দুই যুবককে আটক করা সম্ভব হলেও পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আকুল মিয়া পালিয়ে যায়। তবে তাকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here