বিউটি হত্যা: তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

0
423

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে স্কুলছাত্রী বিউটি আক্তারকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আ স ম শামছুর রহমান ভূঁইয়াকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটিকে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা। কমিটির অন্যা সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা ও সহকারী পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম।  গত ২১ জানুয়ারি শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ব্রাহ্মণডোরা গ্রামের সায়েদ আলীর মেয়েকে বাড়ি থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় বাবুল মিয়া ও তার সহযোগীরা। এক মাস তাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। এরপর বিউটিকে কৌশলে তার বাড়িতে রেখে পালিয়ে যায় বাবুল।

এ ঘটনায় গত ১ মার্চ কিশোরীর বাবা সায়েদ বাদী হয়ে বাবুল ও তার মা স্থানীয় ইউপি মেম্বার কলমচানের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে মেয়েকে তার নানার বাড়িতে লুকিয়ে রাখা হয়। এর পর বাবুল ক্ষিপ্ত হয়ে ১৬ মার্চ বিউটি আক্তারকে তার নানার বাড়ি থেকে রাতে জোর করে তুলে নিয়ে যায়। ফের ধর্ষণের পর তাকে হত্যা করে লাশ শায়েস্তাগঞ্জের হাওরে ফেলে রাখা হয়।

বিষয়টি জানাজানি হলে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমসহ দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। হত্যা ও ধর্ষণের অভিযোগে ১৭ মার্চ তার বাবা সায়েদ আলী বাদী হয়ে বাবুল মিয়াসহ দু’জনের নাম উলেল্গখ করে এবং অজ্ঞাতপরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে শায়েস্তাগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলার পর ২১ মার্চ পুলিশ বাবুলের মা কলমচান ও সন্দেহভাজন হিসেবে একই গ্রামের ইসমাইলকে আটক করে। কিন্তু মূল হোতা বাবুলকে এখনও আটক করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে প্রধান আসামি বাবুলের শ্বশুর, খালা ও খালাতো বোনকে গতকাল জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। তারা হলেন- বাবুলের শ্বশুর আবদুল কাদির (৫০), খালা জহুর চান বিবি (৬০) ও খালাতো বোন ঝুমা আক্তার (২০)। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য ফরিদ মিয়ার জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয় তাদের।  জিজ্ঞাসাবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে শায়েস্তাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিছুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার তাদের পৃথক সময়ে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও বাবুলকে গ্রেফতারে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি। গত ১৭ মার্চ বেলা সাড়ে ১১টায় শায়েস্তাগঞ্জের পুরাইকলা বাজার সংলগ্ন হাওর থেকে স্কুলছাত্রী বিউটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here